মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন

স্বপ্নের পদ্মা সেতুঃ ভাগ্য পরিবর্তন হবে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের

আহনাফ তাহমিদ 
  • আপডেট টাইম : শনিবার ১২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২৩৮ বার পঠিত

বাংলাদেশের পদ্মা নদীর উপর নির্মাণাধীন একটি বহুমুখী সড়ক ও রেলসেতু পদ্মা সেতু। এই সেতুর মাধ্যমে লৌহজং,মুন্সিগঞ্জের সাথে শরিয়তপুর ও মাদারীপুর যুক্ত হবে।যার ফলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের সাথে উত্তর-পূর্ব অংশের সংযোগ ঘটবে।
পদ্মা সেতুর সম্পূর্ণ নকশা এইসিওএমের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় পরামর্শকদের নিয়ে একটি দল তৈরি করে।সেতুটি তৈরিতে ব্যয় হচ্ছে ৩০ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লক্ষ টাকা।এই প্রকল্পটি তিনটি জেলাকে অন্তর্ভুক্ত করবে।
বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশের জন্য এটি একটি সবচেয়ে বড় চ্যালেন্ঞ্জিং নির্মান প্রকল্প। পদ্মা- ব্রক্ষপুত্র- মেঘনা আববাহিকায় ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যর ৪১ টি স্পেন, ৬.১৫০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য এবং ১৮.১০ মিটার প্রস্থের পরিকল্পনায় তৈরি হচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় সেতু।
ইতোমধ্যে সেতুর ৪১টি স্পান বসানোর কাজ শেষ হয়েছে এবং এর সাথে সাথে এখন থেকে দৃশ্যমান হবে সেতুর সম্পূর্ণ অংশ।
পদ্মা সেতুর সাথে জড়িয়ে আছে ১৬ কোটি মানুষের আবেগ।পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প মাওয়া-জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে নির্দিষ্ট পথের মাধ্যমে দেশের কেন্দ্রের সাথে দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের সরাসরি সংযোগ তৈরি করবে।সেতুটি অপেক্ষাকৃত অনুন্নত অন্ঞ্চলের সামাজিক,অর্থনৈতিক ও শিল্প বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে।প্রকল্পটির ফলে প্রতক্ষ্যভাবে প্রায় ৪৪,০০০ বর্গ কিলোমিটার বা বাংলাদেশের মোট এলাকার ২৯% অন্ঞ্চলজুড়ে ৩ কোটিরও বেশি মানুষ প্রতক্ষ্যভাবে উপকৃত হবে। যার ফলে প্রকল্পটি দেশের পরিবহন নেটওয়ার্ক ও আন্ঞ্চলিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। সেতুটিতে পরবর্তীতে গ্যাস,বৈদ্যুতিক লাইন এবং ফাইবার অপটিক ক্যাবল সম্প্রসারণের জন্য ব্যবস্হা রয়েছে। তাছাড়া সেতুটি নির্মিত হয়ে গেলে দেশের জিডিপি ১.২ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে।
পদ্মা সেতুর কারনে সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্হা যেমন গড়ে উঠবে পাশাপাশি ব্যাবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে আগে থেকে বহুগুণ। এখন নদীপথে দক্ষিণাঞ্চল থেকে রাজধানী ঢাকাসহ আশেপাশের এলাকায় বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি,মাছ সহ অন্যান্য পণ্য আনতে অনেক সময় লেগে যায়,অনেক সময় দীর্ঘ জ্যামের কারনে এসব পণ্য পচন ধরে,যার ফলে এসব পণ্য মালিকদের লোকসান গুনতে হয়।কিন্তু এ সেতু হয়ে গেলে মানুষের জীবনযাত্রা অনেক সহজ হয়ে যাবে,আর অল্প সময়েই রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় পণ্য সরবরাহ করা যাবে। এ সেতুর মাধ্যমে খুব কম সময়ে মানুষজন চলাচল করতে পারবে। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষজনের দারিদ্র্য ধীরে ধীরে নিরসন হবে।দক্ষিণাঞ্চলে প্রায় ২১ জেলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করবে এই পদ্মা সেতু।
হাঁটি হাঁটি পা পা করে মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে দেশের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। যদিও স্বপ্ন এখন প্রায় সত্যি, সেতুর সবগুলো স্পান বসানোর কাজ শেষ এবংএখন সেতুর ৬.১৫০ কিলোমিটারের সম্পূর্ণ পদ্মা সেতু দৃশ্যমান।দেশের ইতিহাসে তৈরি হচ্ছে সবচেয়ে বড় সেতু,পূরণ হচ্ছে জনগণের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন,আর এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের বাংলাদেশ।
লেখকঃ আহনাফ তাহমিদ 
শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এ জাতীয় আরো খবর..